বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২:৫৬ পূর্বাহ্ন

শিথিলের আগেই ‘শিথিল’ লকডাউন

শিথিলের আগেই ‘শিথিল’ লকডাউন

ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ঢাকা: রাজধানীতে জন চলাচলের পাশাপাশি বেড়েছে যান চলাচলও। প্রায় নির্বিঘ্নে চলাচল করছে মানুষ। কোনো কোনো ক্ষেত্রে মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধিও। চলমান কঠোর বিধি-নিষেধের মেয়াদ আগামী ১০ আগস্ট পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। আর ১১ আগস্ট থেকে বিধি-নিষেধ শিথিল করার ঘোষণা দিয়েছে সরকার। তবে এর আগেই যেন শিথিল হয়ে গেছে বিধি-নিষেধ। সেই সঙ্গে শনিবার থেকে সব শিল্প-কারখানা খুললে বিধি-নিষেধ আরও অকার্যকর হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

গত ১ আগস্ট থেকে রপ্তানীমুখী প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি স্বউদ্যোগে অনেক বেসরকারি প্রতিষ্ঠান খুলে যায়। মূলত এরপর থেকেই রাজধানীতে সবকিছু স্বাভাবিক হতে শুরু করে। গণপরিবহন বন্ধ থাকার কারণে সড়কে বেড়েছে অন্যান্য যানবাহন।

বৃহস্পতিবার (০৫ আগস্ট) রাজধানীর মতিঝিল, পল্টন, কাকরাইল, মালিবাগ এলাকা ঘুরে এ চিত্র দেখা যায়।
সড়কে প্রাইভেট গাড়ি ও মাইক্রোবাসের সংখ্যা স্বাভাবিক সময়ের মতোই। সংখ্যায় খুবই কম হলেও সিএনজিচালিত অটোরিকশাও চলছে। মোটরসাইকেল চলছে হাজারে হাজারে।

বিভিন্ন সড়কে পুলিশের তল্লাশি ও চেকপোস্ট দেখা যায়। তবে সেখানে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর তেমন তৎপরতা দেখা যায়নি। লকডাউনের প্রথম দিনগুলোর মতো জিজ্ঞাসাবাদের মুখে পড়তে হয়নি বাইরে বের হওয়া মানুষদের।

এদিকে কঠোর বিধি-নিষেধের ১৪তম দিনেও বৃহস্পতিবার দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে ঢাকায় প্রবেশ করতে দেখা গেছে মানুষকে। গণপরিবহন বন্ধ থাকায় ঘণ্টার পর ঘণ্টা তাদের অপেক্ষা করতে হয়েছে গন্তব্যে যাওয়ার জন্য। দূরের পথ পাড়ি দিতে অতিরিক্ত ভাড়া গুনে রিকশা-ভ্যানে চড়তে হয়েছে তাদের।

তবে যাদের অফিস খুলেছে, চরম ভোগান্তির মুখে রয়েছেন সেসব কর্মজীবীরা।

বেসরকারি একটি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন আশরাফুল আলম। মতিঝিল শাপলা চত্বরে দাঁড়িয়ে কর্মস্থল তেজগাঁওয়ে যাওয়ার জন্য খুঁজছিলেন রিকশা। তিনি বলেন, ‘সরকার ব্যাংক, শিল্পপ্রতিষ্ঠান সবই খুলে দিয়েছে। তাহলে এই বিধি-নিষেধ রেখে কি লাভ? এখন মানুষের চলাচলের জন্য গণপরিবহন খুলে দেওয়া হোক। অফিস খুলে দিয়ে গণপরিবহন বন্ধ রেখে মানুষকে ভোগান্তি দেওয়ার কোনো মানে হয় না।

মালিবাগ মোড়ে কথা হয় বেসরকারি একটি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা মৌমিতা রায়ের সঙ্গে। তিনি বলেন, গত এক সপ্তাহ ধরে অফিস করছি। গণপরিবহন না থাকায় চরম ভোগান্তিতে আছি।

এদিকে, কারণে-অকারণে বাইরে বের হওয়া মানুষের মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি মানতেও রয়েছে অনীহা। অনেককেই মাস্ক ছাড়া ঘুরে বেড়াতে দেখা গেছে।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত রাজধানীতে বিভিন্ন চেকপোস্টে গ্রেফতার ও জরিমানা করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)।

ডিএমপির মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি) ইফতেখায়রুল ইসলাম জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার ডিএমপি কর্তৃক গ্রেফতার ৩৮৫ জন। মোবাইল কোর্টে ১২৬ জনকে ২ লাখ ৪৪ হাজার ৮৫০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

এর বাইরে ডিএমপি ট্রাফিক কর্তৃক ৫৩৮টি গাড়িকে ১২ লাখ ২৫ হাজার ৫০০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

 95 total views,  1 views today

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




themesba-zoom1715152249
© আইন আদালত প্রতিদিন। সর্বসত্ব সংরক্ষিত।
ডিজাইন ও ডেভেলপে Host R Web