শনিবার, ২২ জানুয়ারী ২০২২, ০৪:৫০ পূর্বাহ্ন

রেইনট্রি হোটেলের ধর্ষণ মামলার রায় কাল

রেইনট্রি হোটেলের ধর্ষণ মামলার রায় কাল

Spread the love

বনানী রেইনট্রি হোটেলে দুই শিক্ষার্থী ধর্ষণ মামলার রায় আগামীকাল বৃহস্পতিবার ঘোষণা করা হবে। ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৭ এর বিচারক মোসাম্মাৎ কামরুন্নাহার রায় ঘোষণা করবেন। গত ১২ অক্টোপাস রায় ঘোষণার জন্য দিন ধার্য ছিল। কিন্তু বিচারক অসুস্থ থাকায় ওই দিন রায় ঘোষণা করা হয়নি। পরে ২৭ অক্টোবর আবার দিন ধার্য করা হয়। ওই দিন সিনিয়র আইনজীবী আব্দুল বাসেত মজুমদার মৃত্যুবরণ করায় আদালতের কার্যক্রম বন্ধ থাকায় রায় ঘোষণা পেছানো হয়। নতুন তারিখ ধার্য করা হয় ১১ নভেম্বর।

আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার আহমেদের ছেলে সাফাত আহমেদ, তাঁর বন্ধু ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট প্রতিষ্ঠান ‘ই-মেকার্স’-এর কর্মকর্তা নাঈম আশরাফ ওরফে আবদুল হালিম, ঢাকার পিকাসো রেস্তোরাঁর মালিক রেগনাম গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মোহাম্মদ হোসেন জনির ছেলে সাদমান সাফিক এবং সাফাতের গাড়িচালক বিল্লাল হোসেন ও দেহরক্ষী রহমত আলী এই মামলার আসামি।

গত ৩ অক্টোবর রাষ্ট্র ও আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক শুনানি শেষে রায়ের তারিখ ঘোষণা করেন ট্রাইব্যুনাল। ওই দিন মামলায় জামিনে থাকা পাঁচ আসামি জামিন বাতিল করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন বিচারক। গত ৫ সেপ্টেম্বর এই মামলার যুক্তিতর্ক শুনানি শুরু হয়। ২২ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয় মামলায়। ২০১৮ সালের ১৩ জুলাই পাঁচ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়। এর আগে ১৯জুন তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আমলে নেন ট্রাইব্যুনাল। একই বছরের ৮ জুন আদালতে পাঁচ আসামিকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট দাখিল করা হয়।

ধর্ষণের ঘটনার ৪০ দিন পর ২০১৮ সালের ৬ মে বনানী থানায় পাঁচজনকে আসামি করে ধর্ষণের অভিযোগ এনে মামলা করেন ধর্ষণের শিকার হওয়া একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। মামলার এজাহারে বলা হয়, সাফাতের জন্মদিনের পার্টিতে অংশ নিতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার হন তাঁরা। বনানীর দ্য রেইনট্রি হোটেলের দুটি কক্ষে আটকে রেখে তাঁদের ধর্ষণ করা হয়। ২০১৮ সালের ২৮ মার্চ রাত ৯টা থেকে পরদিন সকাল ১০টা পর্যন্ত আসামিরা মামলার বাদী এবং তাঁর বান্ধবী ও বন্ধু শাহরিয়ারকে আটকে রাখে। অস্ত্র দেখিয়ে ভয়ভীতি প্রদর্শন ও গালাগাল করে। বাদী ও তাঁর বান্ধবীকে পৃথক কক্ষে নিয়ে যায় আসামিরা। বাদীকে সাফাত আহমেদ ও তাঁর বান্ধবীকে নাঈম আশরাফ ধর্ষণ করেন। অন্যরা ধর্ষণে সহযোগিতা করেন। তদন্তকালীন এই মামলায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়ে ধর্ষণের কথা স্বীকার করেন আসামিরা।

 53 total views,  1 views today

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




themesba-zoom1715152249
© আইন আদালত প্রতিদিন। সর্বসত্ব সংরক্ষিত।
ডিজাইন ও ডেভেলপে Host R Web