বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ১২:৫৮ অপরাহ্ন

মানুষকে ভালোবেসে ১০ দিন মায়ের সাথে দেখা না করা যুবক শুভ

মানুষকে ভালোবেসে ১০ দিন মায়ের সাথে দেখা না করা যুবক শুভ

ভূঁইয়া সামী আল মুজতবা। সবার কাছে পরিচিত ‘শুভ’ নামে। সাবেক এই ছাত্রনেতা দীর্ঘদিন ইটালীতে কর্মরত আছেন৷ গত ১২ মার্চ দেশে ফিরে আশ্রয় নেন হোম কোয়ারেন্টাইনে। এর মধ্যে বিবেকের দায়বদ্ধতা থেকে মায়ের সাথেও দেখা করেননি তিনি। শুধু তাই নয়, নিজের স্ত্রী ও শিশু সন্তানকেও হোম কোয়ারেন্টাইনে রেখেছেন। সরকারের সকল নির্দেশনা মেনে চলছেন। দেশের জন্য আবেগ প্রকাশ পেয়েছে
তার এই চিঠিতে।]

আসসালামু আলাইকুম, আদাব,

বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাস মহামারী রূপে আবির্ভুত হয়েছে। চীনের পর আমার কর্মস্থল ইতালিতে ব্যাপক হারে ছড়িয়েছে করোনা ভাইরাস। এর মধ্যেই আক্রান্তের সংখ্যা ৫০০০০ ছাড়িয়েছে। মৃত্যুর সংখ্যা ৫০০০ এর কাছাকাছি। বাংলাদেশেও এই ভাইরাসের কালোথাবা পড়েছে। ব্যাপকহারে ছড়িয়ে পড়ার আশংকা দেখা যাচ্ছে। এর দায়ভার পড়েছে আক্রান্ত দেশ থেকে আগত প্রবাসী বাংলাদেশীদের উপর। সারা বাংলাদেশের বেশিরভাগ মানুষই ইতালি প্রবাসীদের বেশি দোষারোপ করছে। দোষারোপ করার যথেষ্ট কারন ও আছে। সেটা হলো এটা বাংলাদেশ থেকে সৃষ্টি কোনো ভাইরাস নয়। প্রবাসীদের মাধ্যমেই এসেছে। সরকার দেরীতে হলেও ব্যাবস্থা নিচ্ছে।
আসলে আমরা বেশিরভাগ মানুষই নিজের দায়িত্ব সম্পর্কে সচেতন নই। সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী হোম কোয়ারেন্টাইন ৯০ভাগ প্রবাসীই মানছে না। তারা দেশে এসেই দেশের আলো বাতাস গায়ে মাখার জন্য ঘুরে বেড়াচ্ছে। আমি গত ১২ মার্চ তারিখে ইতালির চলমান পরিস্থিতি অবনতির দিকে যাচ্ছে দেখে দেশে ফিরে আসি। না এসে উপায় ছিলো না। মুহুর্তের নোটিশে আমাদের জব বন্ধ হয়ে যায় অনির্দিষ্টকালের জন্য। আর দেশে মা এবং পরিবারের সদস্য ও শুভাকাঙ্ক্ষীদের দুঃশ্চিন্তা আমাকে বাংলাদেশে ফিরে আসার জন্য সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য করেছে। যাত্রা পথে রোম,দুবাই ও চট্টগ্রাম এয়ারপোর্টে স্ক্যানার দিয়ে তাপমাত্রা মেপে দেখে জ্বর আছে কিনা। সব এয়ারপোর্ট থেকে দেশে ফেরার গ্রীন সিগনাল পাই।চট্টগ্রাম এয়ারপোর্টে বাংলাদেশ স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের দায়িত্ব প্রাপ্ত ডাক্তার আমাদের কাছ থেকে ব্যাক্তিগত সকল তথ্য নিয়ে ১৪ দিনের হোম কোয়ারেন্টাইন পালনের অনুরোধ জানায়। যদিও আমি আসার আগেই ফ্যামেলিকে বলে রেখেছি আমি ১৪ দিন স্বেচ্ছায় হোম কোয়ারেন্টাইন করবো। আমার সাথে কেউ দেখা করতে পারবে না। সম্পূর্ন আলাদা থাকবো। সেই মোতাবেক গত ১২ মার্চ তারিখ থেকে আমার হোম কোয়ারেন্টাইন শুরু। এখনও আমার সাথে আমার মায়ের দেখা হয় নি। বাবার সাথে দেখা হয়েছে তাও দূর থেকে। চট্টগ্রামের স্থানীয় প্রশাসন ও আমার সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছে আমার সবকিছু ঠিক আছে কিনা। আমিও যথাযথ তথ্য দিয়ে উনাদের নিয়মিত আপডেট দিয়ে যাচ্ছি। আমি হোম কোয়ারেন্টাইন করছি শুধু আমার বা আমার পরিবারের জন্য না আশেপাশের সবার জন্য যাতে আমার মাধ্যমে যদি ভাইরাস এসেও থাকে তাহলে যেন অন্য কারও কাছে ছড়িয়ে না যায়।

আমার কাছের মানুষের সুস্থতার জন্য নিজেকে ১৪ দিনের স্বেচ্ছায় বাসায় অবরুদ্ধ করে রেখেছি। আমি পত্রিকায় বা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেখেছি বিভিন্ন জায়গায় প্রবাসীরা সরকারের নির্দেশনা মানছে না। কোথাও কোথাও তাদের জরিমানা ও করেছে।আমি সকল প্রবাসীদের অনুরোধ করবো আপনারাও সরকারের নির্দেশনা মেনে চলুন নিজের পরিবার ও শুভাকাঙ্ক্ষীদের অনাকাঙ্ক্ষিত বিপদকে দুরে রাখুন।আমি মানছি সরকারের নির্দেশনা আপনি বা আপনারাও মানুন। আমরা বিদেশের মাটিতে সেদেশের আইন খুব সুন্দরভাবে মেনে চলি তাহলে দেশে আসলে আমাদের দেশের আইনকেও শ্রদ্ধা ও মেনে চলা উচিত। আমাদের প্রত্যেকের উচিত সরকারকে সহযোগিতা করা যাতে এই দুর্যোগ মোকাবেলা করে বাংলাদেশ কে রক্ষা করতে পারি। এই মহামারী একা সরকারের পক্ষে দূর করা সম্ভব না।আমাদের সকলের সম্মিলিত প্রচেস্টায় এই মহামারী দূর করা সম্ভব। সকলের কাছে অনুরোধ থাকবে মুস্টিমেয় কিছু অবিবেচক প্রবাসীদের ভুলের দায় ১কোটি প্রবাসীদের উপর চাপাবেন না। ১কোটি প্রবাসীদের সাথে তাদের মিনিমাম ৪কোটি ফ্যামেলি মেম্বার জড়িত।

আসুন, সবাই মিলে প্রার্থনা করি সৃষ্টিকর্তার কাছে এই বিপদ থেকে প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশ রক্ষা করেন।সরকারী নির্দেশনা মেনে চলি,পরিস্কার পরিচ্ছন্ন থাকি, নিজে সচেতন হই অন্যকেও সচেতন হওয়ার জন্য উৎসাহিত করি।

( লেখক: সাবেক ছাত্রনেতা ও ইটালী ফেরত তরুণ।

 280 total views,  4 views today

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




themesba-zoom1715152249
© আইন আদালত প্রতিদিন। সর্বসত্ব সংরক্ষিত।
ডিজাইন ও ডেভেলপে Host R Web