www.ainadalatprotidin.com
  • বৃহঃ. মে ১৩, ২০২১

AIN ADALAT PROTIDIN

সত্যের সন্ধানে আইন-আদালত প্রতিদিন

বাউফলে প্রথম স্বামীকে তালাক না দিয়ে গোপনে দ্বিতীয় বিয়ে!

ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

পটুয়াখালীর বাউফলে এক নারী ইউপি মেম্বার প্রথম স্বামীকে তালাক না দিয়ে দ্বিতীয় বিয়ে করার খবর ফাঁস হয়েছে। ওই নারীর নাম মোসা.আফরোজা বেগম । তিনি উপজেলার চন্দ্রদ্বীপ ইউনিয়ন পরিষদের ৪,৫ও৬ নম্বর ওয়ার্ডের সংরক্ষিত নারী মেম্বার। আসন্ন নির্বাচেন তিনি পুনরায় কলম প্রতিক নিয়ে প্রতিদ্ব›দ্বীতা করছেন।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, প্রায় ২৫বছর আগে আফরোজা বেগমের সাথে চন্দ্রদ্বীপের চরব্যারেট গ্রামের জয়নাল খলিফার ছেলে মো.ফারুক খলিফার সাথে বিয়ে হয়। তাদের চার কণ্যা সন্তানও রয়েছে। আড়াই বছর আগে দশপাড়া ইউয়িনের বাচ্চু হাওলাদারের ছেলে মো. মশিউর রহমান সুমনের সাথে ভাই বোনের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। সেই সম্পর্ক গড়ায় প্রেমের সম্পর্কে। অবাধে চলাফেরা মেলামেশা করেন তাঁরা। এমনকি একে অণ্যের বাড়িতেও রাত্রিযাপন করেন। একজন জনপ্রতিনিধির এমন কর্মকান্ডে হতবাক স্থানীয় জনগণ।
গতকাল (বৃস্পতিবার) মশিউর রহমান সুমনের সাথে আফরোজা বেগমের দ্বিতীয় বিয়ে খবর ফাঁস হয়ে। ২০২০ সালের ১৪জুলাই পটুয়াখালী নোটারী পাবলিক কার্যালয়ে এফিডেভিট করেন তাঁরা। এফিপডেভিট নম্বর ৪৬০/২০। যাতে বলা হয় একই বছরের ১জুলাই ইসলামী শরীয়ত মোতাবেক একজন মাওলানার মাধ্যমে ২লাখ টাকা দেনমোহরা ধার্য্যে করে বিয়ে করেন তাঁরা। এদিকে প্রথম স্বামীকে তালক না দিয়ে অবৈধভাবে দ্বিতীয় বিয়ে করার এঘটনায় এলাকা জুড়ে তোলপাড় চলছে।
স্থানীয় ইউপি সদস্য (৫নম্বর ওয়ার্ড) আবদুর রহিম জানান,‘ তাঁরা (আফরোজা-সুমন) প্রায় সময়ই এক সাথে থাকেন। পরিচয় দিতো ভাই-বোন। যা নিয়ে এলাকায় ব্যাপক সমালোচনার সৃষ্টি হয়। গোপনে বিয়ে হয়েছে তা আগে জানতাম না। প্রথম স্বামীকে তালাক না দিয়ে দ্বিতীয় বিয়ে করা অত্যন্ত ঘৃনিত কাজ।
স্ত্রীর দ্বিতীয় বিয়ের বিষয়ে জানতে চাইলে মো. ফারুক খলিফা বলেন,‘ এ বিষয়ে আমি কিছু জানি না।
এবিষয়ে জানতে চাইলে দ্বিতীয় বিয়ের কথা অস্বীকার করে ওই ইউপি সদস্য আফরোজা বেগম বলেন,‘ সুমনের সাথে আমার ভাই-বোনের সম্পর্ক। বিশেষ প্রয়োজনে তার সাথে আমি সম্পর্ক বজায় রাখছি। এফিডেভিটে তাঁর স্বাক্ষর রয়েছে এমন প্রশ্ন করলে তিনি বলেন,‘ তাহলে হয়তো সুমন আমাকে ফাঁসানোর জন্য এমন করেছেন।
অপর দিকে সুমনেরও প্রথম স্ত্রী ও তিন সন্তান রয়েছে। আরফোজা বেগমকে বিয়ের এবিষয়ে জানতে চাইলে সদত্তোর দিতে পারেনি সে।
এবিষয়ে চন্দ্রদ্বীপ ইউপি চেয়ারম্যান এনামুল হক বলেন,‘সুমনের প্রথম স্ত্রী আমাকে বিষয়টা জানিয়েছে। আমি তাকে আইনের আশ্রয় নেওয়ার জন্য পরামর্শ দিয়েছি।

 767 total views,  4 views today

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *