বৃহস্পতিবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:৫৩ অপরাহ্ন

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে সাতক্ষীরায় আইনজীবী গ্রেপ্তার

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে সাতক্ষীরায় আইনজীবী গ্রেপ্তার

ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেপ্তার হয়েছেন সাতক্ষীরা জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাড. শাহ আলম। তিনি সাতক্ষীরা জেলা আইনজীবী সমিতির সাতবারের সাবেক সভাপতি ও সাতবারের সাবেক সম্পাদক। এ ছাড়া তিনি বর্তমানে গণতান্ত্রিক আইনজীবী সমিতির সাতক্ষীরা জেলা কমিটির আহ্বায়কের দায়িত্ব পালন করছেন।

সাতক্ষীরা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ দেলোয়ার হুসেন বলেন, অ্যাডভোকেট শাহ আলমকে ডিজাটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় রবিবার পলাশপোল এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। মামলার তদন্তের জন্য পুলিশ পরিদর্শক বিশ্বজিত রায়ের ওপর দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তার বিরুদ্ধে বর্তমান পিপি আব্দুল লতিফের করা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে আরেকটি মামলা চলমান রয়েছে।

সম্প্রতি দু’পক্ষের আইনজীবীদের বিরোধে বারে অবস্থিত অ্যাড শাহ আলমের চেম্বার ভাঙচুর করা হয়।

ওসি দেলোয়ার জানান, রোববার সাতক্ষীরা জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাড. শাহ আলমসহ পাঁচ আইনজীবীর বিরুদ্ধে এ মামলা দায়ের করেন লিয়াকত হোসেন নামের একজন শিক্ষানবীশ আইনজীবী। এর আগে তার বিরুদ্ধে একটি মামলার শুনানি চলাকালে পিপি সম্পর্কে কটূক্তির অভিযোগে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে আরেকটি মামলা হয়।

জানা গেছে, রোববার সদর থানায় একজন শিক্ষানবীশ আইনজীবীর গলায় ‘আমি আইনজীবী নই, আমি টাউট’ এমন একটি লেখা ঝুলিয়ে তা ফেসবুকে ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করেন শিক্ষানবীশ আইনজীবী অ্যাড. লিয়াকত হোসেন।

মামলার আরজিতে বলা হয়-অ্যাড. শাহ আলম ও তার চার সহযোগী আইনজীবী তার গলায় কুরুচিপূর্ণ লেখাটি জোর করে ঝুলিয়ে দেন এবং তার ছবি ধারণ করে ফেইসবুকে ছড়িয়ে দেন। মামলার অন্য আসামিরা হলেন অ্যাড. সিরাজুল ইসলাম (৫), অ্যাড. তারিক ইকবাল তপু, অ্যাড. শাহেদুজ্জামান শাহেদ, অ্যাড. ফুয়াদ হাবিব টিটো।

মামলায় তিনি উল্লেখ করেন যে, তিনি আইন পাস করার পর বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের সার্টিফিকেট পেয়েছেন। সাবেক সভাপতি অ্যাড. আব্দুল মজিদ তাকে শিক্ষানবীশ আইনজীবী হিসাবে একটি কার্ড দিয়ে স্বীকৃতি দিয়েছেন। অথচ ২০২০ সালের ৬ অক্টোবর তখনকার আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাড. শাহ আলম তাকে তার চেম্বারে ডেকে নিয়ে দরজা বন্ধ করে মারপিট করে গলায়, ‘আমি আইনজীবী নই, আমি টাউট’ প্ল্যাকার্ড ঝুলিয়ে ছবি তুলে তার নিজের ফেইসবুক আইডিতে ছেড়ে দেন। এতে তার সম্মানহানি এবং মর্যাদাহানি হয়েছে।

 73 total views,  2 views today

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




themesba-zoom1715152249
© আইন আদালত প্রতিদিন। সর্বসত্ব সংরক্ষিত।
ডিজাইন ও ডেভেলপে Host R Web