শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:১৮ পূর্বাহ্ন

বিচার প্রাথীদের দুর্ভোগ লাগবে অবিলম্বে নিয়মিত আদালত চালু করতে হবে

বিচার প্রাথীদের দুর্ভোগ লাগবে অবিলম্বে নিয়মিত আদালত চালু করতে হবে

ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির উদ্যোগে আয়োজিত সমাবেশে বক্তরা বলেন, বিচার প্রাথীদের দুর্ভোগ লাগবে অবিলম্বে নিয়মিত আদালত চালু করতে হবে 

 

অদ্য ২০মে ২০২১ চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির উদ্যোগে বিচার প্রার্থীদের দুর্ভোগ লাগবে অবিলম্বে নিয়মিত আদালত চালুর দাবীতে আয়োজিত সমাবেশ আইনজীবী ভবনের সম্মুখে অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন সমিতির সভাপতি মুহাম্মদ এনামুল হক এবং স্বাগত বক্তব্য রাখেন সমিতির সাধারণ সম্পাদক এ.এইচ.এম. জিয়াউদ্দিন। সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন কার্যনির্বাহী পরিষদের সিনিয়র সহসভাপতি সৈয়দ আনোয়ার হোসেন, সহসাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আবদুল আল মামুন, অর্থ সম্পাদক এস.এম. অহিদুল্লাহ, পাঠাগার সম্পাদক মোঃ নজরুল ইসলাম, সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়া সম্পাদক মোঃ মনজুরুল আজম চৌধুরী, তথ্য ও প্রযুক্তি সম্পাদক মাহ্মুদ-উল আলম চৌধুরী (মারুফ), নির্বাহী সদস্য যথাক্রমে ফাতেমা নার্গিছ হেলনা, মারুফ মোঃ নাজেবুল আলম, এস এম আরমান মহিউদ্দিন, আবু নাসের রায়হান, জোহরা সুলতানা মুনিয়া, নুর কামাল, মোঃ সরোয়ার হোসাইন (লাভলু), মোমেনুর রহমানসহ বিপুল সংখ্যক আইনজীবী।

আয়োজিত সমাবেশে আইনজীবীগণ একাত্বতা প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের সদস্য ও সমিতির সাবেক সভাপতি মুহাম্মদ দেলোয়ার হোসেন চৌধুরী, সমিতির সাবেক সভাপতি চন্দন দাশ, মো. কফিল উদ্দিন চৌধুরী, রতন কুমার রায়, শেখ ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, এ.এস.এম. বদরুল আনোয়ার, সৈয়দ মোক্তার আহমদ, সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আবু হানিফ, মো. আবদুর রশীদ, মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন চৌধুরী, আইয়ুব খান, সিনিয়র আইনজীবী আবদুস সাত্তার, সামশুল আলম, সেকান্দর বাদশা, এম এ নাসের চৌধুরী, নজমুল হক, আবদুস সাত্তার সরোয়ার, রফিকুল আলম, হাসান আলী চৌধুরী, মুহাম্মদ কবির হোসাইন, তরিক আহমদ, শাহাদৎ হোসেন, আবুল হাসান সাহাবুদ্দিন, এস.ইউ. এম নুরুল ইসলাম, সোলায়মান হায়দার, আবুল কামরুল হাসান সাজ্জাদ, তসলিম উদ্দিন, কাশেম চৌধুরী, আনোয়ার হোসেন আজাদ, ইকবাল হোসাইন, রুবেল পাল, এস.এম. রাশেদ প্রমুখ।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, করোনা সংকটের পর ভার্চুয়াল কোর্ট চালুর বিষয়টি মেনে নিয়ে আইনজীবীরা ভার্চুয়ালি মামলা পরিচালনা করে আসছেন। চট্টগ্রামসহ সারা দেশে লকডাউন থাকলেও সবকিছুই স্বাভাবিকভাবে চলছে। বর্তমান বৈশ্বিক করোন ভাইরাসের আপদাকালীন পরিস্থিতিতে দ্বিতীয় পর্যায়ে বিগত ০৫ এপ্রিল ২০২১ ইং সাল থেকে সরকার সমগ্রদেশে লকডাউন ঘোষণা করলে দেশের সকল আদালতের শারিরীক উপস্থিতিতে বিচারিক কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যায় এবং পূর্বের ন্যায় “ভার্চুয়্যাল কোর্ট” চালু করা হয়।এই সময়ের মধ্যে দেশের আদালতসমূহের নিয়মিত দেওয়ানী ও ফৌজদারী মামলাসমূহ বন্ধ রয়েছে। দেশের সমগ্র প্রশাসন করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় ব্যস্ত থাকার সুযোগে আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। নারী নির্যাতন, ধর্ষণ, চুরি-ডাকাতি, ছিনতাই ইত্যাদি বৃদ্ধি পেয়েছে। থানায় অনেক সময় মামলা না নিলে আদালতে সিআর মামলা করার সুবিধা থেকে বিচারপ্রার্থী জনগণ বঞ্চিত হচ্ছে। এডিএম কোর্টের মাধ্যমে ফৌজদারী কার্যবিধির ১৪৫ ও ১৪৪ ধারার মামলাগুলো হচ্ছে না বিধায় ভূমিদস্যুরা নিরীহ জনগণের জায়গা দখল করে চলছে এবং এসি ল্যান্ডের নামজারি আদেশের বিরুদ্ধে এডিসি (রেভিনিউ)র নিকট আপীল করতে না পারার ফলে এসি ল্যান্ডের আদেশ নিয়ে ভূমিদস্যুরা জায়গা রেজিষ্ট্রি করে চলছে। যে সকল মামলাসমূহ রায়, চূড়ান্ত শুনানী, জেরা পর্যায়ে রয়েছে তা যথাসময়ে সম্পন্ন না হওয়ায় বিচারপ্রার্থী জনগণ চরম ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন। নিয়মিত উচ্চ ও নি¤œ আদালতের কার্যক্রম না থাকায় অনেক নিরীহ মানুষ বিনা বিচারে জেল খানায় মানবতর জীবন যাপন করছেন। এসব ভোগান্তীর নির্মম শিকার হচ্ছেন সাধারণ জনগণ। পাশাপাশি দেশের প্রায় ৫০ সহ¯্রাধিক আইনজীবী উক্ত পেশার উপর নির্ভরশীল বিধায় অনেক বিজ্ঞ আইনজীবী পরিবার পরিজন নিয়ে কঠিন সময় অতিক্রম করছেন। বিজ্ঞ আইনজীবীদের সাথে সংশ্লিষ্ট শিক্ষানবীশ আইনজীবী, এডভোকেটস্ ক্লার্ক, টাইপিষ্টসহ অন্যান্যরা এবং তাদের পরিবার পরিজন চরম আর্থিক সংকটের মধ্যে পতিত হয়েছে। উল্লেখ্য যে, চলমান লকডাউন পরিস্থিতিতে সরকারী বেসরকারী প্রতিষ্ঠান, কলখারখানা, দোকান, মার্কেটসহ দেশের সকল প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম প্রায় স্বাভাবিক রয়েছে।

 

ভার্চুয়্যাল কোর্টের কার্যক্রম পরিচালনা পদ্ধতি অনেক ধীরগতির। ইন্টারন্টে সংযোগ বিছিন্ন হওয়া, ধীরগতি, অবকাঠামোগত সুবিধার অভাব, পর্যাপ্ত যন্ত্রপাতির স্বল্পতা, যথাযথ ভাবে শুনানী করতে সমস্যা হওয়া ও সিস্টেমের কারণে অধিক সংখ্যক বিজ্ঞ আইনজীবী উক্ত কার্যক্রমের সাথে সংযুক্ত হতে পারেন না। এ পদ্ধতিতে শুধুমাত্র মামলা শুনানী ভার্চুয়্যালী হলেও অন্যান্য কার্যক্রমে যেমন, ওকালতনামা প্রদান, মামলার নথিপত্র দেখা, বেইল বন্ড নেওয়া ও জেল খানায় জমা দেওয়া ইত্যাদি কার্যক্রম সংশ্লিষ্ট দপ্তরে স্বশরীরে গিয়ে সম্পন্ন করতে হয়। তাছাড়াও অনেকসময় অনলাইনে জামিন দরখাস্ত দেওয়ার পর শুনানীর জন্য তালিকায় না আসলে তাও সরাসরি গিয়ে তদবির করে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হয়। নামে ভার্চুয়ালি হলেও কোর্টের কার্যক্রম একচুয়ালি পরিচালিত হচ্ছে। এমতাবস্থায় বিচার প্রার্থীদের দুর্ভোগ লাগবে এবং আইন শৃঙ্খলা পরিস্তিতির স্বাভাবিকতা ফিরিয়ে আনতে করোনা পরিস্থিতি বিষয় বিবেচনায় কঠোরভাবে স্বাস্থ্যবিধি রক্ষা করে ভার্চুয়াল পদ্ধতি বাতিল করে অবিলম্বে নিয়মিত আদালত চালু করার জন্য নেতৃবৃন্দ প্রধান বিচারপতির হস্তক্ষেপ কামনা করেন। নিয়মিত আদালত খুলে দেওয়ার বিষয়ে আইনজীবী সমিতি কর্তৃক বিগত ০৬ এপ্রিল, ১৮ এপ্রিল, ২১ এপ্রিল ২০২১তারিখে প্রধান বিচারপতি বরাবরে পত্র প্রেরণ করা হয়েছে কিন্তু অদ্যাবধি কোর পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি বলে সমিতির নেতৃবৃন্দগণ দুঃখ প্রকাশ করেন।

 19,090 total views,  3 views today

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




themesba-zoom1715152249
© আইন আদালত প্রতিদিন। সর্বসত্ব সংরক্ষিত।
ডিজাইন ও ডেভেলপে Host R Web