বুধবার, ২৮ অক্টোবর ২০২০, ১১:৩৫ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
যাত্রী কল্যাণ সমিতি হালিশহর থানা আহ্বায়ক কমিটি গঠিত ইন্টারন্যাশনাল হিউম্যান রাইটস কমিশন, বাংলাদেশ শাখার করোনা সচেতনতায় টিশার্ট ও মাস্ক বিতরণ অব্যাহত বিশ্ব নবী (সাঃ) কে অবমাননা করার প্রতিবাদে কলাপাড়ায় বিক্ষোভ ও সমাবেশ ॥ সরকারী জায়গায় ঘর তুলতে গিয়ে বাঁধার মুখে কলাপাড়া হাসপতালের জহির কলাপাড়া সাংবাদিক ফোরামে দেয়াল ঘড়ি দিলেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী নিজাম উদ্দিন কলাপাড়ায় ইউপি সদস্য হত্যা মামলার তিন আসামী গ্রেপ্তার কলাপাড়া পৌর নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা হাসিব গাজীর প্রার্থীতা ঘোষণা কলাপাড়ার লালুয়ায় সাবেক এক ইউপি সদস্য’র রহস্যজনক মৃত্যু ঐতিহ্যবাহী চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির কার্যক্রম সফটওয়ার ডিজিটালাইশনের শুভ উদ্বোধন মুরাদপুর ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সম্মেলন সম্পন্ন
চট্টগ্রামের সাবেক জেলা রেজিস্ট্রার কারাগারে

চট্টগ্রামের সাবেক জেলা রেজিস্ট্রার কারাগারে

অভিজাত খুলশী এলাকার হাজী গণি সওদাগর ওয়াকফ এস্টেটের ১৩০ কোটি টাকার সম্পত্তি আত্মসাতের অভিযোগে চট্টগ্রামের সাবেক জেলা রেজিস্ট্রার মোহাম্মদ লুৎফুর রহমানকে কারাাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালতের বিচারক। গতকাল রোববার মহানগর দায়রা জজ শেখ আশফাকুর রহমানের আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন। এর আগে তিনি হাইকোর্ট থেকে চার সপ্তাহের জামিনে ছিলেন। হাইকোর্টের আদেশে গতকাল মহানগর দায়রা জজ আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন জানালে আদালতের বিচারক জামিনের আবেদন না-মঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এ বিষয়ে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) পিপি অ্যাডভোকেট কাজী ছানোয়ার আহমেদ লাভলু জানান, লুৎফুর রহমানসহ চার জনের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) চট্টগ্রাম সমন্বিত জেলা কার্যালয়-১ এ মামলা দায়ের করেছিলেন দুদক প্রধান কার্যালয়ের উপ-পরিচালক শাহীন আরা মমতাজ। মো. লুৎফুর রহমান বর্তমানে নীলফামারি জেলা রেজিস্ট্রার হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। মামলার অন্য আসামীরা হলেন, চট্টগ্রাম আদালতের আইনজীবী তৃষ্ণা ভট্টাচার্য, নগরীর আগ্রাবাদ মুহুরীপাড়ার মৃত হাজী জেবল হোসেনের ছেলে মো. জাকির হোসেন ও পাঁচলাইশের আল মাদানী রোডের মৃত সামসুল আলমের ছেলে মো. আতাউল করিম উসমানী সোহেল।
এ বিষয়ে অ্যাডভোকেট ছানোয়ার জানান, মামলার আসামীরা পরস্পর যোগসাজশে ২০১২ সালের ১৩ আগস্ট নগরীর খুলশী এলাকার হাজী গণি সওদাগর ওয়াকফ এস্টেটের ১১৮৪ শতক জমি একটি ভুয়া হেবা ঘোষণা দলিলের (দলিল নং-১৪৫১৬) মাধ্যমে আত্মসাৎ করেছেন। দীর্ঘ অনুসন্ধান শেষে দলিলটি যোগসাজশ করে সম্পাদন করে প্রায় ১৩০ কোটি টাকার মূল্যমানের এসব সম্পত্তি আত্মসাৎ করার বিষয়টি দুদক কর্মকর্তারা নিশ্চিত হন। এরপর দুদক প্রধান কার্যালয়ের অনুমোদন নিয়ে গত ১৯ আগস্ট চট্টগ্রাম কার্যালয়ে মামলা করা হয়।
তিনি আরো বলেন, ‘মামলার চার আসামী পরসস্পর যোগসাজশে দুর্নীতি, প্রতারণা ও জাল জালিয়াতির করে রেজিস্ট্রির মাধ্যমে একটি ভুয়া দলিল সৃষ্টি করে প্রায় ১৩০ কোটি টাকার এসব সরকারি সম্পত্তি আত্মসাতের চেষ্টা করেছেন।

 213 total views,  5 views today

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




themesba-zoom1715152249
© আইন আদালত প্রতিদিন। সর্বসত্ব সংরক্ষিত।
ডিজাইন ও ডেভেলপে Host R Web