www.ainadalatprotidin.com
জানুয়ারি ২২, ২০২১
করোণা ভাইরাসের ওষুধ গোমূত্র ৫০০ রুপি, গোবর ৪০০ রুপি

করোণা ভাইরাসের ওষুধ গোমূত্র ৫০০ রুপি, গোবর ৪০০ রুপি

ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
করোনা ভয়ে কাঁপছে গোটা বিশ্ব। ভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে প্রতিরোধ সরঞ্জাম মাস্ক ও স্যানিটাইজারের সংকটও বাড়ছে। বিভিন্ন দেশে এর প্রতিষেধক আবিস্কারের কথা শোনা গেলেও এখনো বাজারে আসেনি এবং তা বাজারে আসতে আরো যে বেশ কয়েক মাস লেগে যেতে পারে তা অনেকটাই নিশ্চিত। প্রতিরোধই তাই একমাত্র উপায়।
কিন্তু ভারতে গোমূত্র ও গোবর খেয়েই করোনা প্রতিরোধের চেষ্টা চালাচ্ছেন অনেকে!
ভারতীয় গণমাধ্যম এবিপি আনন্দের খবরে বলা হয়েছে, করোনা থেকে মুক্তি দেবে গোমূত্র। এমন বিশ্বাসের উপর ভর করে দোকানের সামনে টেবিল পেতে বসেছেন শেখ মাবুদ আলী নামের এক ব্যক্তি। ঘটনাটি ঘটেছে পশ্চিমবঙ্গের শিল্প শহর ডানকুনিতে।
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শেখ মাবুদ ব্যবসা নিয়ে যথেষ্ট সিরিয়াস। কাগজে ইংরেজি, বাংলায় লিখে দিয়েছেন, তার এই গোমূত্র, গোময় করোনা সারানোর মহৌষধ। পরীক্ষা প্রার্থনীয়। মুখে শুধু বলছেন না, কেউ কৌতূহলী হয়ে দেখতে এলে ছোট্ট গ্লাসে করে ধেলেও দিচ্ছেন চেখে দেখার জন্য। সঙ্গে দিচ্ছেন আশ্বাস, করোনা সেরে যাবে।
গাই গরুর মূত্র ৪০০ রুপি প্রতি লিটার, বকনার ৫০০ রুপি প্রতি লিটার। গোবরও ৫০০ রুপি কেজি। জার্সি গরু খাঁটি দিশি নয়, ভেজাল আছে। তাই তার মূত্রের দাম কম, ৩০০ রুপি লিটার। গোবরও তাই, ৩০০ রুপি/কেজি। তবে দাম নিয়ে চাপাচাপি নেই, কেউ কেনার আগ্রহ দেখালে ৩০০ রুপির গোমূত্র ২০০ রুপি ডিসকাউন্ট দিয়ে ১০০ টাকায় ছেড়ে দিচ্ছেন তিনি।
শেখ মাবুদ জানিয়েছেন, ইতিমধ্যেই ২ জন কিনে ফেলেছেন তার ‘ওষুধ’, অন্যরা চেখে দেখেছেন, জানিয়েছেন, পছন্দ হলে কাল এসে কিনবেন।
শেখ মাবুদের বাড়িতে দুটো গরু আছে। তিনি দুধের ব্যবসাই করে থাকেন। তবে এবার গোমূত্র ও গোবর বিক্রির এই সুযোগ ছাড়তে রাজি নন তিনি।
শেখ মাবুদ জানিয়েছেন, হিন্দু মহাসভার গোমূত্র পার্টি তাকে ব্যবসা বাড়ানোর বুদ্ধি দিয়েছে। গরুদুটোর কিছুই আর ফেলা যাচ্ছে না, দুধ, গোবর, গোমূত্র সব ঝেড়ে পুঁছে বেচে দিচ্ছেন। বিশ্বাস, ঠিকমতো বাজার ধরতে পারলে কদিনের মধ্যে লাল হয়ে যাবেন।
দ্বারিকানাথ ঝা নামে এক খোদ্দেরের বিশ্বাস, গোময়, গোমূত্র সেবনে মহামারী নিয়ন্ত্রণে আসে, পেট পরিষ্কার হয়, টিবি সারে, শ্বাসের অসুখ সেরে যায়। তবে হ্যাঁ, খেতে হবে খালি পেটে।
মাবুদ এই দোকান খুলে বসার তৃপ্ত দ্বারিকানাথ, তাকে দু’হাত তুলে আশীর্বাদও করেছেন তিনি।

 461 total views,  2 views today

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *